ad
ad

Breaking News

Mamata benarjee

Nabanna: ভূমি দফতর নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ মুখ্যমন্ত্রীর, একসঙ্গে কয়েকশো আধিকাকিরকে বদলি

ভূমি সংস্কার দফতরকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নবান্নের। বিএলআরও, এসএলআরও-দের বদলির পাশাপাশি মোট ৪১৬ জন অফিসারকে বদলি করা হল গোটা রাজ্যে

The chief minister expressed his anger about the land department

ছবি : সংগৃহীত

Bangla Jago Desk: ভূমি সংস্কার দফতরকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নবান্নের। বিএলআরও, এসএলআরও-দের বদলির পাশাপাশি মোট ৪১৬ জন অফিসারকে বদলি করা হল গোটা রাজ্যে। কয়েকদিন আগে নবান্নে প্রশাসনিক বৈঠকে ভূমি ও ভূমি সংস্কার দফতরের কাজ নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সরকারি জমি বেদখল হয়ে যাওয়া নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর উষ্মাপ্রকাশের নবান্নের এমন নজিরবিহীন সিদ্ধান্ত।

ভূমি ও ভূমি সংস্কার দফতরের কাজ নিয়ে সম্প্রতি নবান্নে ক্ষোভপ্রকাশ করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার এই দফতরকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নিল রাজ্য প্রশাসন। বিএলআরও, এসএলআরও-দের বদলির পাশাপাশি মোট ৪১৬ জন অফিসারকে বদলি করা হল। ভূমি ও ভূমি রাজস্ব দফতরের অধীনে মোট ৪১৬ অফিসার বদলি হয়েছেন। বদলিদের তালিকায় অ্যাডিশনাল ল্যান্ড অ্যাকুইজিশন অফিসার, অ্যাসিস্ট্যান্ট ল্যান্ড অ্যাকুইজিশন অফিসার, ডেপুটি ল্যান্ড রেভিনিউ অফিসার, স্পেশাল রেভিনিউ অফিসারদেরও বদলি করল নবান্ন। ভূমি দফতরের কাজ নিয়ে বারবার অভিযোগ ওঠে। সেখানে দুর্নীতির ঘুঘুর বাসা আছে বলে অভিযোগ করে সাধারণ মানুষ। সাধারণ মানুষের এই কথা বলতে শোনা গিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীকে। যেখানে সাধারণ মানুষের পরিষেবা দেওয়ার কথা, সেখানে কেন দুর্নীতি হবে? কেন কিছু আধিকারিকের জন্য সরকারের বদনাম হবে? কেন সরকারি জমি বেদখল হয়ে যাবে? এমন একাধিক প্রশ্ন তোলেন মুখ্যমন্ত্রী। যা নিয়ে নাবান্ন থেকে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বুঝিয়ে দিয়েছিলেন দুর্নীতি কোনও ভাবেই বরদাস্ত করা হবে না।

ভূমি দফতর নিয়ে অভিযোগ ওঠায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্প্রতি দফতরের সচিব পদে নিয়ে এসেছেন সিনিয়র আইএস আধিকারিক বিবেক কুমারকে। দফতরের কর্মীদের একাংশের ভূমিকায় মুখ্যমন্ত্রীর ক্ষোভ প্রকাশের প্রেক্ষিতে ওই সব আধিকারিকদের কাজকর্মের ওপর নজরদারি শুরু হয়। সরকারি জমি দখল নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কড়া বার্তার পর রাজস্ব আধিকারিকদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ রাজ্যের। গোটা রাজ্যজুড়ে কয়েকশো আধিকারিককে বদলি করল নবান্ন। যাদের মধ্যে নাম আছে কলকাতার ভূমি রাজস্ব আধিকারিকও। সাম্পতিক কালে একসঙ্গে এত সংখ্যক আধিকারিকের বদলির নজির নেই রাজ্যে।