ad
ad

Breaking News

Rachana Banarjee

Rachana Banarjee : রচনার পছন্দের দই ভাইরাল নেট দুনিয়ায়

মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী শৈবাল মোদক বলেন,হুগলির মিষ্টি যে কোন জায়গার থেকে গুণগত মান ভালো হয় যত্নের সাথে দই করা হয় এখানে

Rachna's favorite yogurt is viral in the net world

নিজস্ব চিত্র

Bangla Jago Desk : হুগলি, রাকেশ চক্রবর্তী : অভিনেত্রী রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় লোকসভার প্রচারে এসে হুগলি দইয়ের প্রশংসায় মঞ্চমুখ। সেই দই ভাইরাল নেট দুনিয়ায়। নবদ্বীপের দই ছাড়াও হুগলিতেও নানা স্বাদের বিভিন্ন ধরনের দই পাওয়া যায়। এই তীব্র গরম থেকে রেহাই পেতে জামাই ষষ্ঠী বাজারে দইয়ের চাহিদা ছিল তুঙ্গে। হুগলির বিভিন্ন মিষ্টান্ন প্রতিষ্ঠানগুলিতে টক, মিষ্টি দই লাল দই ছাড়াও আম ,গন্ধরাজ দই ও কেশর দইয়ের যোগান দিতে হিমশিম খাছে মিষ্টান্ন ব্যবসায়ীরা। জামাইদের শেষ পাতে দইয়ের প্রচলন চলে আসছে বহু যুগ আগে থেকেই। জামাইষষ্ঠী উপলক্ষে হুগলিতে শুধু দই না নানা স্বাদের ট্র্যাডিশনাল ও ফিউশান মিষ্টির পসরা নিয়ে হাজির হয় ব্যবসায়ীরা। এই উৎসব উপলক্ষ্যে আগের দিন থেকেই শাশুড়ি ও জামাইরা মিষ্টির দোকানে ভিড় জমাচ্ছেন। বিভিন্ন রসের দুধের মিষ্টির সঙ্গে জামাই ষষ্ঠী ও শাশুড়ি জিন্দাবাদ সন্দেশ থাকছে।সেগুলি মূল্য বৃদ্ধির কথা মাথায় রেখে আম বাঙালির সাধের মধ্যেই রেখেছেন ব্যবসায়ীরা।

[ আরও পড়ুন : গরম থেকে রেহাই চাই! বর্ষার আহ্বানে পান্তা উৎসব চুঁচুড়ায় ]

বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ।তারই মধ্যে জামাইষষ্ঠী হল জামাইদের ভুঁড়িভোজের বিশেষ আয়োজন।শাশুড়িরা এদিন মিষ্টি ও পঞ্চ ব্যঞ্জন রান্না করে জামাই আপ্যায়ন করেন।ষষ্ঠী উপলক্ষ্যে স্পেশাল দই ও মিষ্টি নিয়ে হাজির হয়েছে চন্দননগরের একাধিক প্রসিদ্ধ মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী।হরেক রকমের সন্দেশের মধ্যে রয়েছে জলভরা,রাজনন্দী,চমচম “শ্বাশুড়ি জিন্দাবাদ” ও “জামাইষষ্ঠী স্পেশাল” সন্দেশ মন কেড়েছে গ্রাহকদের ।মিষ্টিতেও রয়েছে নতুনত্ব ম্যাংগো চকলেট,কাজু মহারাজ,কাঁঠাল সন্দেশ,ম্যাংগো কুলফির মতো হরেক রকমের মিষ্টি।তবে তার মধ্যে নজর কেড়েছে আম দই, ভাপা দই ,লাল দই,কেশ্বর দইয়ের এ বছরে ব্যাপক চাহিদা বেড়েছে বলে মনে করছে মিষ্টি ব্যবসায়ী।

[ আরও পড়ুন : Mamata Banarjee :কুয়েতে বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ডে ৪০জনের বেশি মানুষের মৃত্যু, শোক প্রকাশ মুখ্যমন্ত্রীর ]

চন্দননগরের এক মিষ্টি ব্যবসায়ী ধনঞ্জয় দাস বলেন, জামাইষষ্ঠীতে বিভিন্ন রকমের সন্দেশ ও মিষ্টি তৈরি করেছি। অন্যান্য বাড়ি থেকে এবারে দইয়ের চাহিদা অনেকটাই বেড়েছে। রচনা বন্দ্যোপাধ্যায় হুগলির দই খেয়ে যে ভাবে প্রশংসা করেছিলেন তার জন্য তাকে অনেক ধন্যবাদ। তার প্রশংসার পরেই দই এর চাহিদা যেমন বেড়েছে তেমনি আমাদের মনের জোরও বেড়েছে ।দাম সাধের মধ্যেই রাখা হয়েছে।

মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী শৈবাল মোদক বলেন,হুগলির মিষ্টি যে কোন জায়গার থেকে গুণগত মান ভালো হয় যত্নের সাথে দই করা হয় এখানে। টক দই লাল মিষ্টি দই এর পাশাপাশি বিভিন্ন ফলের নির্যাস থেকেও দই তৈরি করা হচ্ছে আম দই, গন্ধরাজ দই বাজারে চাহিদা আছে ।দই কে আগুনে ফুটিয়ে গাঢ় করা হয়। হুগলি জেলায় বেশিরভাগ মিষ্টান্ন প্রতিষ্ঠানে ভালো দই পাওয়া যায়।জামাইষষ্ঠীতে দই ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের সন্দেশ বা মিষ্টি চাহিদা রয়েছে। বিভিন্ন ধরনের রসগোল্লা ও জল ভরার মত ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি ছাড়াও আমের বিভিন্ন ধরনের মিষ্টি তৈরি করা হয়।আম সন্দেশ, আম কুলফি, কাঁঠাল ও গন্ধরাজ সন্দেশের ব্যাপক চাহিদা আছে। সব মিলিয়ে জামাইষষ্ঠী উপলক্ষে একশো রকম মিষ্টি তৈরি হয়।