ad
ad

Breaking News

Bangladesh

পরাজিত প্রার্থীর সমর্থককে কুপিয়ে খুন 

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থককে কুপিয়ে খুন। নিহত ব্যক্তির নাম শহিদুল ইসলাম (৫৫)।

The supporter of the defeated candidate was hacked to death

সংগৃহীত

Bangla Jago Desk: উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থককে কুপিয়ে খুন। নিহত ব্যক্তির নাম শহিদুল ইসলাম (৫৫)। ঘটনাটি ঘটেছে বাংলাদেশের বরগুনার পাথরঘাটা এলাকায়। কি কারনে খুন, তদন্তে নেমেছে পাথরঘাটা থানার পুলিশ। 

[ আরও পড়ুনঃRath yatra 2024: নদীয়ার মায়াপুর ইসকনের রথযাত্রা উৎসব, হরিনাম সংকীর্তনে মাতোয়ারা দেশ-বিদেশের ভক্তরা

এক মাস আগেই নির্বাচনে ফলাফল ঘোষণা হয়েছে। কিন্তু ভোট সন্ত্রাস এখনও অব্যাহত। বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছিলেন মোস্তফা গোলাম কবির। কিন্তু তিনি ভোটে হেরে যান। তারপরই তার সমর্থকদের উপর চলছিল অত্যাচার। এমনই অভিযোগ পরাজিত প্রার্থীর। 

শনিবার গভীর রাতে পাথরঘাটা বরগুনার পাথরঘাটা এলাকায় শহিদুল ইসলামের ওপর হামলা চালায় দুস্কৃতিরা। জখম অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন। হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, শহিদুল ইসলামের শরীরে ধারালো অস্ত্রের প্রায় ২০টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গিয়েছে। এছাড়া তাঁর পায়ের শিরা কাটা ছিল। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয় শহিদুলের। তারফলেই মৃত্যু হয়। এরপরই শহিদুল ইসলামের বাড়ি পাথরঘাটার দক্ষিণ চরদুয়ানী গ্রামে নেমে আসে শোকের ছায়া।

খুনের ঘটনায় আঙুল উঠেছে পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে জয়ী এনামুল হোসাইনের দিকে। অভিযোগ চেয়ারম্যানের আশ্রিত দুস্কৃতিরাই শহিদুল ইসলামকে খুন করেছে। যদিও চেয়ারম্যান সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, যারা শহিদুলকে কুপিয়ে খুন করেছে,তাদের সঙ্গে আমার কোনও সম্পর্ক নেই। আমি চাই দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি হউক। পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আল মামুন বলেন, খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছায় এবং দেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।